লেখা

আনাড়ির অভ্যুথান
আনাড়ির অভ্যুথান
২৩ জানুয়ারি ২০১৬

সেও বলেছিল এনে দেবে চাঁদ, মিহি মসলিন মেঘ
বেহালার ছড়ে, শব্দে শব্দে আবেগের বুনো বেগ
মন্থর রাতে ক্লান্ত নেশায় স্থির হয়ে যাবে পা
ডাকবে আমাকে ডাহুকীর মায়া, সুপ্তির প্রজ্ঞা

আমারও তখন কারিগর মন,আবিষ্কারের সখ
হতোদ্যম এই পাঁজরের মাঝে আঁকি স্বপ্নের ছক
তাই দুরন্ত ফানুসের বুকে জ্বালিয়েছিলাম দাহ
চোখে ভেসেছিল দূরান্তরের স্বপ্ন ধরার মোহ

তারপর শুধু ঘিরেছে আমায় প্রতীকী সৈন্যদল
ক্ষীণ ন্যুব্জদেহে,আঘাতে আঘাতে নেমেছে অস্তাচল
তবুও আমার তীরে তীরে শুধু পরদা ছেঁড়ার রাত
রক্তের কোষে "বিপ্লব" এলে উবে যায় অবসাদ

আমার উঠোনে সর্পিল রাত-আনাড়ি অভ্যুথান
আমার দুপাশে মোহমুক্তির,শিকল ছেঁড়ার গান
চারিদিকে শুধু বৃষ্টির সুর বৃষ্টি কোথাও নেই
মধ্যরাতের প্রহরী আমার, অনীহা সঙ্গীতেই

১টি মন্তব্য

ওবায়দুল্লাহ মনসুর
২৪ জানুয়ারি ২০১৬

'সেও বলেছিল এনে দেবে চাঁদ, ------'

বাহ!

১৮৩১, ১৮৫৭, ১৯৪৭, ১৯৭?, ২০১?

এ বিশ্ব ভ্রহ্মান্ডকে আল্লাহ তা'আলা নিয়ম শৃংখলার অধীন করে দিয়েছেন। যদিও তা ক্ষেত্র বিশেষে ধরণ বদলায়, নিয়ম ঠিকই থাকে । 'ভাঙা-গড়া' অর্থাৎ গড়ার জন্যে যেমন, ভাঙার জন্যেও রয়েছে রীতি - কোন এক কবি বলেছেন -

ভাঙার নিজস্ব ছন্দ আছে

রীতি-প্রথা আছে

এ্যাবড়ো-খ্যাবড়ো ভাবে ভাঙলে 

ভাঙার বিজ্ঞান থু থু দেবে গায়ে ----

 

অগোপন, বলীষ্ঠ, সাহসী 'সে' একদিন আসবে, হয়ত আমরা থাকবোনা --সেই আগামীর জন্য দোয়া রইলো ---