লেখা

লেবু শরবত
লেবু শরবত
০৬ অগাস্ট ২০১৬

চোখে সবুজের মাঝে টেরিকাটা পথ চলি একেলা ধীরে ধীরে

দেখছি আমার মায়ের চিরচেনা মুখ পায়েচলা ধীরে ধীরে

 

আউশকান্দি ছাড়িয়ে ক্রোশ দূরত্ব নয় রাইয়াপুর গাঁর

ঐক্যের আঁধার ছুঁয়ে বাঁধানো ছবির দোলনা-দোলা ধীরে ধীরে

 

দেয়াল টপকে যায় কানামাছি সাথিরা ; বাবা বললেন দেখে

ধীর-চলায় দূরীভূত হবে, মনসুর, জীবনজ্বালা ধীরে ধীরে

 

পাটকামলার কষ্ট বিরস রচনায় মিশিয়ে নিয়েছিলাম

যেনো সংগেসার শেষে ডুবে আফতাব সন্ধ্যেবেলা ধীরে ধীরে

 

জনারণ্যের কোলাহল ছাপিয়ে দুখিনীর ডাক 'বাছা আয়'

পঁচিশ বছর মাটি হলো ভাঙতে শিকল-তালা ধীরে ধীরে

 

ফিরিয়ে দিলোনা তৃণঘন মন দোয়েল-ডাকা ভোরের বাতাস

বরষা-ভেজা মাঠও দেবেনা ঠ্যালে ফুটবল খেলা ধীরে ধীরে

 

রুপোলী ইলিশকে কাছে টানলোনা মরমিয়া ঢেউ কলহাস্যে

ক্রমরীতিতে ঈগল হয়ে যায় সাহেব-কেবলা ধীরে ধীরে

 

ভরসার ক্ষণ জেনে রোমহর্ষণের পরিমার্জিত কারিগর

নিরাভরণ পদ্যে রপ্ত করি নির্বাণকলা ধীরে ধীরে

 

আমারে নগরপ্রান্তে ভুলিয়ে নিলো শিরশুদ্ধ শান্তির চোর

হত্যাকারী পান করায় লেবুর শরবত এবেলা ধীরে ধীরে

 

চোখের লালীতে নিভাঁজ সরণী দোলা দেয় ভীষণ উতলা

হয়ে সীসাঢালা প্রথম চাঁদ ভাঙে মেঘের জটলা ধীরে ধীরে

 

 

 

নিউইয়র্ক

০৮ আগষ্ট, ২০০৯