অনুবাদ

আল্লামা ইকবালের 'শিকওয়া'-র কাব্যানুবাদ
আল্লামা ইকবালের 'শিকওয়া'-র কাব্যানুবাদ
অনুবাদ করেছেন ওবায়দুল্লাহ মনসুর
০৫ অক্টোবর ২০১৫

শিকওয়া

 

কেনো চিরকাল কাটাতে হবে আমাকে

                                 লভ্যকাজে হেলায়, ব্যর্থতার?

আগামী সকাল কেনো আমাদের নয়,

                                 মজে থাকবো ভুতকালের গভীরে?

কেনো দুর্দশা বুলবুলিতে শুনেই ভ্রষ্ট হবে

                                ধ্যানী ভাবনা আমার?

হে পাখি, আমি কি গোলাপ ফুল যে নিজেকে

                                সোপর্দ করি নিঝুম প্রহরে?

বেদনার শক্তিকে একমাত্র সুর করেছি

                                আমার হৃদয়-সংগীতের;

আমার মুখে ছাই জেনে আল্লাহকেই

                                উদ্দেশ্য সকল অভিযোগের।

        * * * * * * *

 

হ্যাঁ, সমর্পণের অভ্যাসের জন্য আমরা

                               খ্যাত ছিলাম চিরকাল;

হ্যাঁ, দুখের নিগড়ে বন্দি হয়ে এখন

                               শোক-কাহিনী বলায় বিখ্যাত।

বোবা কান্নাকে সাথি করে হৃদয় আমরা

                               করেছি পূ্র্ণ রক্তলাল ;

মুহূর্তের উচ্চারণে যদি ভুল হয়ে যায়,

                               হতে চাইনা কুখ্যাত।

হে প্রভু ! তোমার বিশ্বাসীদের হৃদয়ের

                               আর্তনাদটুকু শুনে নাও;

প্রশংসার জয়গানে অভ্যস্থ, এবার

                               অভিযোগটুকু শুনে যাও।

         * * * * * * *

 

আযলে বর্তমান জাতিস্বত্তা তোমার

                               যা প্রারম্ভহীন পুরাতন;

প্রস্ফূটিত কানন ছিলো সমীরণহারা

                               অবারিত সৌরভ যার প্রাণ।

সকল গলিতে হবে ন্যায়ের প্রতিষ্ঠা

                               তাই চাও যদি হে নিরঞ্জণ!

বাতাসে বেগ না হলে কে ছড়াতো দূরে

                               জগৎময় পুষ্পিতের সুঘ্রাণ?

সারা বিশ্বকে বাঁধতে এক রশিতে আমরা

                               পায়ে ফেলেছি মাথার ঘাম;

না হলে তোমার রাসূলের উম্মতেরা কি

                               মিছে-মিছি দেওয়ানা ছিলাম?

         * * * * * * *

 

আমাদের পূর্বে তোমার এই ধরিত্রির

                               ছিলো বিচিত্র হালচাল;

কেউ অবনত ছিলো পাথর-সমুখে,

                               কেউ করতো বৃক্ষের ইবাদাত;

সাকারে বিশ্বাসী ছিলো মানুষের জ্ঞানবৃত্তি,

                               চর্মচোখের নাগাল;

মানতোনা অদৃশ্য তারা; আমরা না দেখে

                               মেনেছি তাওহীদ-রেসালাত।

কোথাও কেউ ছিলো কি তোমার শির্‌কমুক্ত

                               পবিত্র নাম লওয়ার?

শক্তিধর মুসলমানেরা ভাঙলো সেই

                               অন্ধকারের দেওয়ার?

          * * * * * * *

 

যদিও সেলজুকদের সাম্রাজ্য ছিলো;

                              ছিলো তুরাণী আধিপত্যবাদ;

যদিও চীনারা করেছে চীন শাসন, আর

                              সাসানীয়রা করেছে ইরান;

যদিও গ্রীক জ্ঞান-বিজ্ঞানে বিশাল ভূভাগ

                              ছিলো হিরন্ময় আবাদ;

এ দুনিয়ায় যেমন ছিলো খৃষ্টবাদ,

                              ইহুদিরাও ছিলো শক্তিমান।

বলো, তোমার নামে ডানহাতে তরবারি ধরেছিলো

                              আমরা ছাড়া আর কে?

ভ্রষ্ট পৃথিবীতে সাম্য-ন্যায়ের শাসন দেখালো

                              আমরা ছাড়া আর কে?

         * * * * * * *

 

আমরা তোমার পথের বাহিনী ছিলাম;

                              সকল প্রান্তরে অকুতোভয়;

লড়েছি হায়দারি হাঁকে জলে, স্থলে সমান

                              গতি আর পারদর্শীতায়।

আমাদের আজান কাঁপিয়ে দিয়েছিলো

                              ইউরোপের সব উপাসনালয়;

আফ্রিকাবাসীকে এনেছিলাম তপ্ত মরুতে

                              কেবল তোমার সেজদায়।

শোষকের রক্তচক্ষু দমাতে পারেনি

                              আমাদের সমর্পিত প্রাণ;

ধারালো তরবারি ছায়ায় শ্লোগান ছিলো

                              ‘আল্লাহ সর্ব শক্তিমান’।

          * * * * * * *

 

(শিকওয়া সুদীর্ঘ একটি কবিতা। এর ৩১টি স্তবকের মধ্যে প্রথম ছয়টি স্তবক এখানে প্রকাশ করা হল।)